blog

মারি রক্তক্ষরণ ও মুখের দুর্গন্ধ দূর করুন।

দাঁত ও মুখের নানান সমস্যার মধ্যে গুরুতর দুটি হল মারি রক্তক্ষরণ ও দুর্গন্ধ। মাড়িতে রক্ত ক্ষরণের বিষয়ে অনেকগুলো কারণ দেখা যায় দাঁতের মাড়ি থেকে রক্ত কোন সমস্যা তৈরি হতে পারে এর মাঝে প্রধান কারণ হলো দাঁতের ও মুখের ভেতরে সঠিক যত্ন নেওয়া এর সাথে দেখা যায় দাঁত ও দাঁতের গোড়ার নানান সমস্যা। দাঁতের সমস্যা দেখা দিলে ডাক্তারের শরণাপন্ন না হওয়ার ফলে মাড়ি থেকে রক্তক্ষরণ হতে থাকে। কারণ দীর্ঘদিন দাতে ট্রিটমেন্ট না করলে মারি দুর্বল হয়ে যায় এ ছাড়া অনেকের শরীরে ভিটামিন সি এর অভাব আছে তার সেই ক্ষেত্র হতে পারে এর ফলে রক্তক্ষরণের সমস্যা দেখা দেয়। পাশাপাশি হরমোনের পরিবর্তন থেকেও এই সমস্যা দেখা দেয় অনেক সময়।

১. নিমপাতা চিবানো- নিমপাতার বহুবিধ ব্যবহার সম্পর্কে জানা থাকলেও মারি রক্তক্ষরণ বন্ধের এই পাতার উপকারিতা নিয়ে জানেন না অনেকে নিমপাতা ঔষধি গুনের জন্য বিশেষভাবে পরিচিত অন্যান্য ব্যবহারের পাশাপাশি তিনটি পরিষ্কার নিমপাতার দাঁতের মাড়ি রক্ত পড়া বন্ধ হয়। কারণ এই পাতায় আছে এন্ট্রিমাইক্রোবিয়াল উপাদান। তারাতো ক্ষরণ জন্য দায়ী দাঁতের মাড়ি ইনফেকশন সারাতে কাজ করে থাকে।

২. লবঙ্গ- ঝাল যুক্ত এই প্রাকৃতিক উপাদান টি দাঁত ও মাড়ির জন্য খুব উপকারী। লবঙ্গ অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়া উপাদান তাৎক্ষণিকভাবে দাঁতের গোড়া রক্তক্ষরণ বন্ধ করতে কাজ করে। মাড়ি থেকে রক্ত ক্ষরণ হলে তিন-চারটি শুকনো লবঙ্গ সময় নিয়ে চিবোতে  হবে। ঝাঁজ সহ্য না হলে এক কাপ জলে 5 টি লবঙ্গ দিয়ে জল ফুটিয়ে সেই জল দিয়ে মুখ কুলকুচি করতে হবে।

৩. লবণ জল দিয়ে কুলি করা- দাঁতের মাড়ি রক্তক্ষরণে ক্ষেত্রে লবণ জল দিয়ে কুলি করা সবচাইতে প্রাচীন শহর উপকারী একটি উপায়। কারণ লবণ হলুদ প্রদাহ বিরোধী। এটি জীবাণু নাশক উপাদান দাঁতের মাড়ি প্রবাহ ফুলে যাওয়া ব্যথা ভাব সংক্রমণ দ্রুত কমাতে কাজ করে। মারি রক্তক্ষরণ দেখা দিলে এক গ্লাস কুসুম গরম জলে আর চা চামচ লবণ মিশিয়ে কুলি করতে হবে দিনে দু তিনবার কুলি করলে দ্রুত উপকার পাওয়া যাবে।

৪. ফ্লোরাইড সমৃদ্ধ টুথপেস্ট-

দাঁতের ও মুখের ভেতরের সুস্বাস্থ্যের বজায় রাখতে রক্তক্ষরণ বন্ধ করা খুবই দরকারি। ফ্লোরাইড সমৃদ্ধ টুথপেস্ট দাঁত ও মাড়ির সুরক্ষায় ভালো কাজ করে প্রতিদিন অবশ্যই করতে হবে বিশেষ করে খাবার গ্রহণের পর। ফ্লোরাইডযুক্ত টুথপেস্ট দাঁতের মাড়িতে থাকা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে এবং ভালভাবে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে তাই যেকোনো টুথপেস্ট ব্যবহার না করে ফ্লোরাইড সমৃদ্ধ কেনার ব্যাপারে সচেতন হতে হবে।

৫. ভিটামিন যুক্ত খাদ্য গ্রহণ- দাঁতের দাঁতের মাড়ি রক্তক্ষরণ বন্ধের ভিটামিন যুক্ত খাদ্য গ্রহণ করার জরুরী। বিশেষ করে ভিটামিন সি ও ভিটামিন কে থাকা খাবার মাড়িতে স্বাস্থ্য রক্ষায় খুবই কার্যকর। বিভিন্ন ধরনের টকজাতীয় ফল যেমন লেবু কমলা লেবু আঙ্গুর তাছাড়াও শসা তেলযুক্ত মাছ ও ডিম  ভিটামিন আছে। এসব খাবার গ্রহণের পাশাপাশি মানি রক্তক্ষরণ দেখা দিলে দন্ত বিশেষজ্ঞ সাথে পরামর্শ নিন।

৬. স্কেলিং- দাঁতের গোড়া অথবা মাড়ি থেকে রক্ত পড়ার সমস্যাটি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দাঁতের গোড়া তৈরি হওয়া প্ল্যাক ক্যালকুলাসের ( দাঁতের চারপাশে জমা থাকা পাথর) জন্য দেখা যায় দীর্ঘদিন দাঁতের গোড়ায় জমে থাকলে মাড়ি নরম হয়ে যায় ও রক্তক্ষরণ হয়। এ কারণে প্রতি 6 মাসে পর স্কেলিং করা নারীর সুরক্ষায় বড় ভূমিকা রক্ষা করে।

মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে করণীয়

১. পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করতে হবে।  বিশেষ করে গরম জলে প্রতিদিন অন্তত একবার কুলি করা অভ্যাস করতে হবে।

২. প্রতি দুই মাস পর ব্যবহার দাঁত মাজার ব্রাশ বদলাতে হবে কারণ একবার বেশিদিন ব্যবহার করলে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ হতে পারে।

৩. মুখের দুর্গন্ধ তাৎক্ষণিকভাবে দূর করতে চাইলে অল্প পরিমাণে লেবু অথবা কমলালেবুর খোসা খেলে উপকার পাওয়া যায়।

৪. প্রতিদিন চার পাঁচটি পুদিনা অথবা ধনিয়াপাতা জীবনে অভ্যাস গড়ে তোলা যায়।

৫. শুধু দাঁত মাজা কখনোই যথেষ্ট নয় ভালো মতন ফ্লসিং করতে হবে। কারণ দাঁত মাজার পর দুই দাঁতের মাঝে ক্ষুদ্র খাদ্যকণা থেকে যায় যেটা পৌঁছে গন্ধ তৈরি হয় তাই প্রতিবার খাবারের পর করা জরুরি।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


%d bloggers like this: