blog

কাঁচা চিনা বাদাম খাওয়া শরীরের জন্য কতটা উপকারী আসুন জেনেনি।

বাজারে অনেক রকমের বাদাম কিনতে পাওয়া যায়। তবে সবচেয়ে জনপ্রিয় বাদাম টির নাম হল চিনাবাদাম। অন্যান্য বারের তুলনায় চিনাবাদাম সহজলভ্য বলে হয়তো অনেকে একে তেমন গুরুত্ব দিতে চান না।

হিন্দু খাদ্যগুণের চিনাবাদামে কোন অংশই কম নেই। সবচেয়ে বেশি উপকার মিলবে ভাজা বাদামে বদলে কাচা বাদাম খাওয়ার অভ্যাস।

কাঁচা হজম করতে না পারলে জলে ভিজিয়ে খাবেন। বাদামের উপর পাতলা বাদামি বাহারি রঙের আবরণ থাকে। জলের দশ মিনিট ভিজিয়ে রাখলে খোসাটা উঠে যায়। গর্ভবতী মহিলা বাড়ন্ত শিশু ও মেনোপজ হয়ে গেছে এমন নারীদের জন্য কাঁচা বাদাম ভীষন জরুরী। কারণ এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম।

বাদামের প্রোটিন দেহ গঠনে ও মাংসপেশি তৈরিতে সাহায্য করে কোন ক্যান্সার স্তন ক্যান্সার ও হার্ট এর রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে। এতে রয়েছে প্রচুর ক্যালসিয়াম যাহার গঠনে সাহায্য করে।  বাদামে রয়েছে প্রচুর আয়রন রক্তে লোহিত কণিকা কার্যক্রমের সাহায্য করে। বাদামের ভিটামিন ই এবং কেরাটিন ত্বক ও চুল সুন্দর রাখে। ত্বকে বলিরেখা বিলম্বিত করে।

বয়স্ক নারী ও পুরুষের জন্য বাদাম ভীষন জরুরী। কারণ বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিশেষ করে আমাদের দেশে 40 বছরের পর বেশিরভাগ মানুষের আসটিও পরসিস হয়। এই অসুখে হাড় দুর্বল হয়ে যায় যা পুরো শরীরের ওপর ফেলে ক্ষতিকর প্রভাব। এমন অবস্থা থেকে পরিত্রাণের জন্য প্রয়োজন দেহের ওজন কমানো ডায়াবেটিস উচ্চরক্তচাপ থাকলে তা নিয়ন্ত্রণে রাখা ও নিয়মিত ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া।

মনোপজ হয়ে যাওয়া নারীদের হাড় দুর্বল হয়ে পড়ে তাদের দেহের জরুরি অনেক হরমোন তৈরি হয় না এমন অবস্থায় কাঁচা বাদাম খাওয়া দরকার। এতে শরীরের জন্য জরুরি অনেক উপকরণ রয়েছে জারড রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে সাহায্য করে বার্ধক্যকে দূরে ঠেলতে। ত্বকের অসুখ গুলো কে দূরে রাখতে। দাঁত হাড় নখ চুলকে উজ্জ্বল ও সুন্দর করতে এই বাদামের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। তবে সবাই হজম করতে পারে না অবশ্যই নিজের হজম ক্ষমতা বুঝে বাদাম খান।

চিনা বাদামের উপকারিতা

মানুষের জন্য চিনাবাদাম স্বাস্থ্যসম্মত খাবার। শখ করে কখনো কখনো হয়তো খাওয়া হয় তবে এর উপকারিতা সম্পর্কে জানলে প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় বাদাম রাখতে চাইবেন। এটি শরীরে অনেক উপকার করতে সক্ষম। এটি পুষ্টিগুণসম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথে খেতেও বেশ দারুন।

১. শরীরে মাত্রাধিক  উচ্চ রক্তচাপ, ওজন বৃদ্ধি ও ডায়াবেটিস এর মতন কঠিন রোগ নিয়ন্ত্রণ করে। বাদামি অসাধারণ কার্যকারী ফ্যাট শরীর থেকে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। তাছাড়া এই বাদামের শরীরের চর্বি কমাতে সাহায্য করে।

প্রতিদিন এক মুঠো চিনা বাদাম খেতে পারে শরীরের কোলেস্টরল কমাতে।

২. রাতে ১০-১৫ টি বাদাম জলে ভিজিয়ে রেখে সকালে খেলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ থাকে। চিনাবাদামে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ডায়াবেটিস নির্মূল বিশেষভাবে কার্যকারী। এছাড়াও চিনাবাদাম রক্ত থেকে সুক্রোজ এর মাত্রা কমায়।

৩. প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় একমুঠো বাদাম যুক্ত করে আপনি অতিরিক্ত ওজনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। তাছাড়াও এটি আপনার শরীরে শক্তি বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।

৪. চীনা বাদামে প্রচুর পরিমাণে বি ৩  আছে যা মস্তিষ্কে সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে। কিছু কিছু মানুষের স্মৃতিশক্তি তুলনামূলকভাবে অন্যদের চেয়ে কম। খুব অল্প বয়সেই অনেকেই ভুগছেন মস্তিষ্কের সমস্যায়। ভুলে যাচ্ছেন সামান্য বিষয় এবং অনেক চেষ্টা করেও মনে রাখতে পারছেন না। এমনটা হয় যখন আমাদের মস্তিষ্ক পরিমাণ মতন পুষ্টি পায় না। একে মস্তিষ্কে খাবার হিসেবে গণ্য করা যায়। চীনা বাদামে প্রচুর পরিমাণে বি ৩ আছে যা মস্তিষ্কে সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করে। তাই প্রতিদিন চিনাবাদাম বা এর মাখন খাবেন যাতে করে আপনি স্বয়ংক্রিয় মস্তিষ্ক পেতে পারেন।

৫. শরীরের সঠিক পরিমাণ পুষ্টি না থাকলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। চিনাবাদামের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের কঠিন রোগ কে বাসা বাঁধে বাধা দান করে। তাই প্রতিদিন চিনা বাদাম খেলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


%d bloggers like this: