blog

যেকোনো রকমের পায়ে ব্যাথার থেকে মুক্তি

আপনার পা-ই আপনাকে সমস্ত জায়গায় বহন করে নিয়ে যায়। কিন্তু যতক্ষণ না তারা প্রবলেম ক্রিয়েট করতে শুরু করে ততক্ষণ পর্যন্ত আপনি তাদের প্রতি মনোযোগ দেন না। আমাদের ভালোবাসার “হাই হিল” জুতো গুলির জন্য, ফুট পেইন এর মত অপ্রীতিকর ঘটনা লাইফে ঘটেই থাকে। পায়ের যন্ত্রণা বা ব্যথা, খুব একটা আরাম প্রিয় কোন বিষয় নয়। এবং তাই এই সমস্যা শীঘ্রই চিকিৎসা করা প্রয়োজন। এখানে ৫ টি অসাধারণ হোম প্রতিকারের একটি তালিকা রয়েছে যা আপনাকে প্রায়শই পাদদেশের ব্যথা উপশম ঘটাতে সাহায্য করতে পারে।

পায়ের ব্যথা বা ফুট পেন কি? 

পা, যে কোন ইনজিউরির কারনে আপনাকে হার্ট করতে পারে। পায়ের ব্যথা সৃষ্টি করার সবচেয়ে সাধারণ কারণগুলি হল:

সঠিকভাবে মাপসই পাদুকা না পরা।

উচ্চ হিল পরা, যা পায়ের আঙ্গুলএর উপর অনেক চাপ দেয়।

অতিরিক্ত পরিমাণ ব্যায়াম বা ক্রীড়া কার্যক্রম।

গর্ভধারণ, ডায়াবেটিস, এবং বাত।

ফুসকুড়ির কারনে।

এই কারণগুলির মধ্যে কোনটি আপনার পায়ের ব্যথার জন্য দায়ী হতে পারে। আসুন এখন এই সমস্যাটির সাথে যুক্ত সাধারণ লক্ষণগুলি দেখি।

পায়ে ব্যথা এবং লক্ষণ

পায়ের ব্যথার কিছু সাধারণ লক্ষণ এবং উপসর্গ থাকেঃ

পা ফোলা।

লালচে ভাবের সৃষ্টি হওয়া।

সংবেদনশীলতায় সাড়া না দেওয়া।

কোনো কারণবশত পা এফেক্টেড হাওয়া।

অতিরিক্ত পরিমাণ হাটা কিংবা দীর্ঘক্ষণ এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকা
লক্ষণ এবং উপসর্গগুলি, পায়ের ব্যথা এবং কারণের উপর নির্ভর করে বিশাল পরিমাণে পরিবর্তিত হয়।

পায়ের ব্যথার ধরন

হিল ব্যথা: আপনার পায়ের আঙ্গুলের ব্যথা, প্ল্যানার ফ্যাসিটিটিস বা হিল স্পুরের মত চিকিৎসা অবস্থার কারণে হতে পারে।
বল ফুট পেইনঃ আপনার পায়ের বলের আচগুলি সাধারণত মেটাটারালজিয়া, মর্টন এর নিউরোমা, বা সিসোময়েডাইটিসের মত চিকিৎসার শর্তগুলির বহিরপ্রকাশ।

আর্চ পেনঃ খিলান ব্যথা পিছনে সাধারণ অপরাধী প্লান্টার ফাশিট।
পায়ের আঙ্গুলের ব্যথা: গাউট, যা গর্ভাবস্থার একটি ফর্ম, এটি পাদদেশের ব্যথার সর্বাধিক সাধারণ কারণ যা পায়ের পাতা এবং পদাঙ্গুলির সঙ্গে জড়িত।

এই ছাড়া অন্য কিছুর কারনে আপনি মাঝে মাঝে আপনার পায়ের বাইরের প্রান্তে ব্যথা অনুভব করতে পারেন। এটি সম্ভবত মেটারিজেল হার ভেঙে যাওয়ার থেকেও হতে পারে।

ফুড পেইন এর ন্যাচারাল ঘরোয়া ট্রিটমেন্ট

প্রয়োজনীয় তেল

ইউক্যালিপ্টাসের তেলঃ

আপনার যা প্রয়োজনঃ ইউক্যালিপটাস তেল ১০ ড্রপ এবং গরম জল দিয়ে ভরা একটি বড় বাটি।

আপনি কি করবেনঃ বড় বাটির মধ্যে গরম জল নিয়ে ইউক্যালিপটাস তেল ১০ ড্রপ দিয়ে দিন। জলে, ১০ থেকে ১৫ মিনিট আপনার পা ডুবিয়ে রাখুন।
প্রতিদিন একবার থেকে দুইবার এটি ইউজ করুন।

এটা কিভাবে কাজ করেঃ ইউক্যালিপটাস অয়েল তৈরি হয় ইউক্যালিপটাস গাছের পাতা থেকে। ইউক্যালিপটল কনটেন্ট সমৃদ্ধ এই অয়েল এন্টি ইনফ্লামেটরি প্রপার্টি যুক্ত। পায়ের ব্যথায় ম্যাজিকের মতো কাজ করে।

পেপারমিন তেলঃ

আপনার যা প্রয়োজনঃ ১০ থেকে ১২ ড্রপ পেপারমিন তেল এবং একটি বড় বাটির একবাটি গরম জল।

আপনি কি করবেনঃ গরম জলে পেপারমিন তেল ১০ থেকে ১২ ড্রপ মিশিয়ে পা মিনিট পনেরো ডুবিয়ে রাখুন।
দিনে তিনবার এই পদ্ধতি এপ্লাই করুন।

এটা কিভাবে কাজ করেঃ পেপারমিন তেল, ইউক্যালিপটাস তেলের মতোই পায়ের ব্যথা উপশমে সাহায্য করে। অ্যান্টি ইনফ্লামেটরি কম্পাউন্ড থাকার দরুন, ফুট পেইন রিলাক্সেশন এ দারুন ভাবে কাজ করে।

বেকিং সোডাঃ

আপনার যা প্রয়োজনঃ হাফ কাপ বেকিং সোডা এবং এক বাটি গরম জল।
আপনি কি করবেনঃ হাফ বাটি গরম জলের মধ্যে বেকিং সোডা ভালো করে মিশিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন। পদ্ধতিটি ১৫ থেকে কুড়ি মিনিট কন্টিনিউ হবে।
দিনে কমপক্ষে একবার এপ্লাই করবেন।

এটা কিভাবে কাজ করেঃ মেন্থল প্রপার্টি সমৃদ্ধ বেকিং সোডা পায়ের ব্যথা উপশমের সহায়ক।

নারিকেল তেলঃ

আপনার যা প্রয়োজনঃ আপনার প্রয়োজন হবে জাস্ট দুই থেকে তিন চামচ কোকোনাট অয়েল বা নারকেল তেল।
আপনি কি করবেনঃ আপনার পায়ের এফেক্টেড এরিয়াতে নারকেল তেল খুব ভালোভাবে মালিশ করুন। ভালো ফল পেতে কয়েক ড্রপ নারকেল তেল পায়ের ব্যথা স্থানে লাগিয়ে রাখুন।

ঘুমোতে যাবার আগে প্রত্যেকদিন একবার করে ব্যবহার করুন।
এটা কিভাবে কাজ করেঃ কোকোনাট অয়েল বা নারিকেল তেল ই একমাত্র ন্যাচারাল উপাদান যা কিনা পায়ের ব্যথা লাভ করতে সাহায্য করে। মিডিয়াম চেইন ফ্যাটি এসিড এবং মেন্থল প্রপার্টি সহজেই ফুট পেইন নিরাময় করে।

আদাঃ

আপনার যা প্রয়োজনঃ ১ ইঞ্চি আদা, এক কাপ গরম জল এবং মধু
আপনি কি করবেনঃ আদা থেঁতো করে এক কাপ গরম জলের মধ্যে ফেলে দিন। আদা মিশ্রিত গরম জল পায়ের ব্যথা স্থানে আস্তে আস্তে ঢালুন, এক চামচ মধু লাগিয়ে আস্তে আস্তে মেসেজ করুন।
দিনে তিনবার ইউজ করুন।

এটা কিভাবে কাজ করেঃ আদাতে এক প্রকার এনজাইম থাকে যাকে বিজ্ঞানের ভাষায় বলে জিঙ্গিবেইন। এতে ইনফ্লেমেটরি প্রোপার্টিও আছে। যা পায়ের ব্যাথা নিরাময়এর একটি অসাধারণ উপকরণ।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


%d bloggers like this: