blog

পুরুষ ও মহিলাদের প্রজনন ক্ষমতা ঘরোয়া প্রতিকার

বন্ধ্যাত্ব এমন একটি সমস্যা যা বহু বিবাহিত দম্পতির মন এবং জীবনকে জর্জরিত করে।তারা তাদের নিজস্ব একটি পরিবার শুরু করতে আগ্রহী হলেও, একটি শিশু গর্ভে ধারণের ব্যর্থতার কারণে এ ক্ষেত্রে বাধা আসে। প্রজনন সমস্যা পুরুষ বা মহিলা বা উভয়ের মধ্যেই বিদ্যমান থাকতে পারে এবং এর মোকাবিলার সর্বোত্তম উপায় হ‘ল কোনো পক্ষকেই দোষ না দিয়ে সঠিক প্রতিকার যা প্রজনন ক্ষমতা বাড়াতে পারে তার সন্ধান করা।

বন্ধ্যাত্বের কারণ কী?

মহিলাদের মধ্যে

  • প্রজননের শারীরিক পথে বাধা
  • প্রোল্যাকটিনের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়া
  • পলিসিস্টিক ওভারিয়ান সিনড্রোমের উপস্থিতি
  • এন্ডোমেট্রিওসিসের উপস্থিতি
  • অনুপযুক্ত পুষ্টি
  • বেশি বয়স
  • সিলিয়াক রোগ

পুরুষদের মধ্যে

  • শরীরে হরমোনের ভারসাম্যহীনতা
  • অনুপযুক্ত পুষ্টি
  • ভ্যারিকোসিল অবস্থা
  • বীর্যপাতকে ঘিরে সমস্যা
  • অ্যান্টি–স্পার্ম অ্যান্টিবডিগুলির উপস্থিতি
  • প্রজনন ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে এমন কিছু ওষুধ
  • রাসায়নিক এবং ক্ষতিকারক পরিবেশগত পরিস্থিতিতে উন্মুক্ত হওয়া
  • বেশি অ্যালকোহল গ্রহণ, ধূমপান, ড্রাগ ব্যবহার ইত্যাদির মতো জীবনধারার পছন্দগুলি

প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধির প্রাকৃতিক প্রতিকার

১. চ্যাস্ট বেরি

হরমোনের মাত্রাগুলির মধ্যে ভারসাম্য আনার ক্ষেত্রে, চ্যাস্ট বেরি একটি ভাল বিকল্প। এটি সরাসরি পিটুইটারি গ্রন্থিকে প্রভাবিত করে এবং বর্ধিত প্রল্যাকটিনের মাত্রা যুক্ত মহিলাদের জন্য এটি একটি আশীর্বাদ। জলে বেরিগুলিকে ফুটিয়ে এবং ছেঁকে নিয়ে জলটি পান করলে মহিলাদের ডিম্বস্ফোটন বৃদ্ধি পায়। এটি ক্যাপসুল হিসাবেও পাওয়া যায় এবং সঠিক যে পরিমাণে খেতে হবে তা আপনার ডাক্তার আপনাকে জানাবেন। স্তনের ক্যান্সার, মনোরোগের ওষুধ এবং আইভিএফের ক্ষেত্রে এটি সাধারণত এড়ানো হয়।

২. মাকা মূল

মহিলাদের পাশাপাশি পুরুষদেরও বন্ধ্যাত্ব চিকিৎসার ক্ষেত্রে এটি একটি একক উত্তর। দেহে হরমোনের উৎপাদন বাড়ানোর জন্য পরিচিত, এই শিকড়টি বিশেষত হাইপোথাইরয়েডিজমে আক্রান্ত মহিলাদের জন্য উপকারী। ছোট এক চা চামচ মাকা মূলের গুঁড়ো গরম দুধ বা জলের সাথে খাওয়া হল এটি গ্রহণ করার সর্বোত্তম উপায়। এমনকি এটি সকালের জলখাবারের জন্য স্মুথি বা সিরিয়ালে বা দানাশস্যেও ব্যবহার করা যেতে পারে।তবে আপনি গর্ভবতী হওয়ার পরে মাকা শিকড় বা মূল গ্রহণ করা কঠোরভাবে নিষিদ্ধ।

৩. শীতকালীন চেরি

এটি মহিলাদের প্রজনন ক্ষমতার চিকিৎসা করতে সহায়তা করার জন্য একটি জনপ্রিয় ওষধি। সাধারণত সুপারিশ করা হয় যে শীতকালীন চেরি ওষধিটি আপনার পিরিয়ডের প্রায় এক সপ্তাহ পরে খাওয়া উচিত। এই গুঁড়ো ওষধির ছোট এক চা চামচ, দুধের সাথে মেশালে, সেটি হবে আপনার প্রজনন ক্ষমতা উন্নত করা শুরু করার জন্য একটি উপযুক্ত ডোজ।

৪. হেলোনিয়াস শিকড় বা মূল

এটি আবার ‘ফলস ইউনিকর্ন রূট‘ বা ‘মিথ্যা ইউনিকর্ন শিকড়’ নামেও পরিচিত, হেলোনিয়াস শিকড় বন্ধ্যাত্ব সম্পর্কিত বিভিন্ন সমস্যার চিকিৎসার জন্য প্রশংসিত। দেহে প্রোজেস্টেরনের মাত্রা অনুকূল করে এবং পরবর্তীকালে সামগ্রিক ইস্ট্রোজেনিক ক্রিয়াকলাপ উন্নত করে, এই ওষধি ডিম্বস্ফোটন পর্যায়ে জরায়ুতে যে শক্তি প্রয়োজন তা উৎপন্ন করতে সহায়তা করে। এটি শরীরের প্রজনন হরমোনগুলিতে সহায়ক প্রভাব ফেলে। সব মিলিয়ে, এই ওষধিটি মহিলার হরমোন মাত্রা পুনরুদ্ধার করে এবং ফলস্বরূপ ডিম্বস্ফোটনকে উন্নত করে।

৫. আলফালফা

এর মধ্যে যথেষ্ট পরিমাণে ভিটামিন উপস্থিত থাকার কারণে বেশিরভাগ লোকেরা এই ঘরোয়া প্রতিকারটিকে জোরের সহিত ব্যবহার করে থাকেন। আলফালফায় ভিটামিন এ, ভিটামিন ই, ভিটামিন ডি, ভিটামিন এল এর মতো বিভিন্ন ভিটামিন রয়েছে বলে জানা যায় এবং আরও কয়েকটি খনিজ সহ প্রায় 8টি পাচক এনজাইম বা উৎসেচকেরে এর পরিপূরক হয়। এটি সামগ্রিকভাবে বহু উপায়ে শরীরকে প্রভাবিত করে। আলফালফা কম মাত্রায় ইস্ট্রোজেন বৃদ্ধি করে হরমোনের মাত্রার ভারসাম্য বজায় রাখার পাশাপাশি, সেটি উচ্চ মাত্রায় থাকলে সেটিকে নিয়ন্ত্রণ করে, যার জন্য এটিকে ফাইটোইস্ট্রোজেন নামে আখ্যায়িত করা হয়। এটি গ্রহণের সর্বোত্তম উপায় হ‘ল বিভিন্ন স্যালাডের সাথে এর অঙ্কুরগুলিকে যোগ করা। অতিরিক্ত ভক্ষণ এড়াতে আপনার ডাক্তারের দ্বারা পরিমাণটি পরীক্ষা করে নিন।

৬. ড্যানডেলিয়ন(এক ধরনের পুষ্পবৃক্ষ বিশেষ)

ড্যানডেলিয়ন শ্লেষ্মা ঝিল্লি নিঃসরণের উদ্দীপনার জন্য দায়ী। স্বাদে তিক্ত হিসাবে পরিচিত, ড্যানডেলিয়নের মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং খনিজ। এর পাতায় ডাইউরেটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা শরীরের ভিতরের বিভিন্ন টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থগুলিকে অপসারিত করতে সহায়তা করে। একটি পরিষ্কারকরণ ওষধি হিসাবে কাজ করে, ড্যানডেলিয়নের শিকড়গুলি হরমোনজনিত ভারসাম্য বজায় রাখার পাশাপাশি লিভারের কার্যকারিতা সমর্থন করে এবং সেটিকে সুস্থ রাখার জন্য দায়ী।

৭. আঙুরের বীজের নির্যাস

পুরুষদের শক্তির জন্য ভিটামিন সি প্রয়োজনীয়। সেটির সাথে আঙুরের বীজের নির্যাসের দুর্দান্ত সংমিশ্রণ পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বাড়ায়। আঙুরের বীজের নির্যাসে সত্যই শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য রয়েছে যেগুলি পুরুষের শুক্রাণুকে অতিরিক্ত শক্তি এবং সুরক্ষা প্রদান করে, যার ফলে ডিম্বাণুতে পৌঁছানো এবং সেটিকে নিষিক্ত করার আগে পর্যন্ত এদের বাঁচার সম্ভাবনা ও আয়ু বৃদ্ধি পায়।

৮. রাজকীয় জেলি

মৌমাছির কাছ থেকে প্রাপ্ত, এই জেলিটি ক্রিম জাতীয় উপাদানের অনুরূপ। এটি মৌচাকের মৌমাছিরা রাণী মৌমাছির পুষ্টির জন্য উৎপন্ন করে। এর গঠনপ্রকৃতি বিভিন্ন প্রোটিন, ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন, শর্করা, অ্যামিনো অ্যাসিড এবং অনুরূপ জিনিসে সমৃদ্ধ। রাজকীয় জেলিতে উপস্থিত প্রচুর পরিমাণে আয়রন এবং ক্যালসিয়ামের কারণে, এটি সেবন করার ফলে সেটি হরমোনের ভারসাম্যকে সঠিক ্রা রাখে এবং প্রজনন ক্ষমতা ফিরিয়ে আনার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তোলে।

৯. মাখন দিয়ে মৌরি

ভারী চেহারার মহিলারা বন্ধ্যাত্ব নিয়ে সমস্যার মুখোমুখি হন। মৌরি বিশেষত ভারী চেহারার মহিলাদের এই জাতীয় বন্ধ্যাত্বের অবস্থার চিকিৎসা করার জন্য পরিচিত। কিছু মৌরি গুঁড়ো খাঁটি মাখনের সাথে মিশ্রিত করলে এমন একটি মিশ্রণ তৈরি হয় যা কয়েক মাস ধরে প্রতিদিন খাওয়া উচিত। প্রজনন ক্ষমতা বাড়ানোর এটি একটি দুর্দান্ত পদ্ধতি।

১০. খেজুর

খেজুরগুলি কেবল অত্যন্ত সুস্বাদুই নয়, এর মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরণের পুষ্টি যা গর্ভধারণকে সমর্থন করে। ভিটামিন এ, ভিটামিন ই, ভিটামিন বি এবং একাধিক খনিজ খেজুরের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এগুলির সমস্তই কোনও মহিলার গর্ভধারণের জন্য প্রয়োজনীয়,এবং এর পাশাপাশি শেষ অবধি স্বাস্থ্যকর গর্ভাবস্থা ধরে রাখার জন্যও জরুরী। এগুলি কোষ্ঠকাঠিন্যের চিকিৎসায় এবং মলত্যাগ নিয়মিতকরণেও সহায়তা করে। খেজুর এবং ধনিয়া শিকড়ের একটি পেস্ট তৈরি করে, এটি গরুর দুধের সাথে ফুটিয়ে নিন এবং আপনার পিরিয়ডের পরে প্রতিদিন এই শীতল মিশ্রণটি পান করা অত্যন্ত উপকারী। জলখাবার হিসাবে বা স্মুথির মাধ্যমে সাধারণভাবে খেজুর খাওয়াও খুব ভাল।

১১. ওমেগা 3 এবং ডিএইচএ

ওমেগা 3 ফ্যাট এবং ডিএইচএ–র মতো ভালোভাবে হরমোন নিয়ন্ত্রণ আর কেউই করতে পারে না, যাকে ডকোসোহেক্সাএনোইক অ্যাসিড নামে অভিহিত করা হয়। মহিলাদের ভাল ডিম্বস্ফোটনের জন্য এগুলি অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। সালমন মাছে ভালো পরিমাণে পাওয়া গেলেও টুনা বা হাঙ্গর জাতীয় উচ্চ মার্কারী যুক্ত মাছ এড়ানো প্রয়োজনীয়। বাজারে এমন পরিপূরক রয়েছে যা আপনার গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ায় এবং একবার তা হয়ে গেলে, ভ্রূণের মস্তিষ্কের বিকাশের উন্নতি করতেও এটি বেশ উপকারী হতে পারে।

১২. অশ্বগন্ধা

এটি পুরুষদের পাশাপাশি মহিলাদেরও প্রজনন ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য পরিচিত আর একটি জনপ্রিয় ওষধি। এছাড়াও, অশ্বগন্ধা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে আরও শক্তিশালী করে তোলে। এটি আরও গভীরতর হয় এবং শরীরের অন্তঃক্ষরাতন্ত্রকে প্রভাবিত করে, এটিকে স্বাভাবিকতায় নিয়ে আসে।

১৩. রাস্পবেরি পাতা

রাস্পবেরি গাছের পাতা, এবং বীজের তেলও অত্যন্ত দরকারী বলে জানা যায়। এগুলিতে বিভিন্ন ফ্ল্যাভোনয়েড, ট্যানিন এবং এলাজিক এসিড রয়েছে যা গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ানোর জন্য পরিচিত কিছুটা মনোরম স্বাদ যুক্ত পাতায় প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকে যা জরায়ুকে শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। গরম জলে শুকনো পাতা মিশিয়ে এবং ভেষজ চায়ের মতো করে পান করে এটিকে সহজে গ্রহণ করা যায়। প্রতিদিন কয়েক কাপ খেলে প্রজনন ক্ষমতা উন্নত করতে সহায়তা করতে পারে।

১৪. লাল ক্লোভার(ত্রিপত্র বিশেষ)

অত্যন্ত পুষ্টিকর ওষধি হিসাবে পরিচিত, লাল ক্লোভার একাধিক ভিটামিনের সাথে কয়েকটি খনিজেও অত্যন্ত সমৃদ্ধ। এটির মধ্যে রক্ত পরিশোধন করার একটি দুর্দান্ত গুণ রয়েছে। ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম এবং অন্যান্য খনিজগুলির উপস্থিতি শরীরের পেশীগুলির কার্যকারিতা সর্বোত্তমভাবে বজায় রাখতে সহায়তা করে এবং মহিলাদের জরায়ুর স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। লাল ক্লোভার যোনির শুষ্কতা সঠিক রাখার জন্যও পরিচিত কারণ এটির উপস্থিতি জরায়ুর শ্লেষ্মার ক্ষরণ বাড়িয়ে তোলে।

১৫. সৈন্ধব লবণ

কখনও কখনও, আপনার বন্ধ্যাত্ব চিকিৎসা করার জন্য অভিনব এবং বহিরাগত গুল্মগুলির প্রয়োজন হয় না। সৈন্ধব লবণ বাজারে সহজেই উপলভ্য এবং এতে প্রজনন ক্ষমতার উন্নতিতে সহায়তা করার গুণাবলী রয়েছে। সারারাত ধরে সৈন্ধব লবণ জলে ভিজিয়ে রেখে, এবং ভোর বেলা সেই জল পান করার ফলে, প্রায় 5-6 মাস পরে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। জল মহিলাদের মাসিক চক্রকে স্বাভাবিক করতে সহায়তা করে, ফলস্বরূপ ভাল এবং স্বাস্থ্যবান জরায়ু তৈরি হয়। এই জল খাওয়ার ফলে বমি বা ডায়রিয়া হতে পারে। এটি একটি স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া এবং এটির চিকিৎসার জন্য কোনও ওষুধ পান করা বা খাওয়া থেকে বিরত হওয়া উচিত নয়। কিছু ক্ষেত্রে, আপনার ব্যবহৃত সৈন্ধব লবণের পরিমাণ হ্রাস করলে তা এক্ষেত্রে সাহায্য করতে পারে।

১৬. দারুচিনি

এখানে আরও একটি বিকল্প দেওয়া হল যা সহজেই উপলভ্য এবং গর্ভাবস্থার সম্ভাবনা বাড়াতে সহায়তা করতে পারে। দারুচিনি খাওয়ার মাধ্যমে বন্ধ্যাত্বের অন্যতম প্রধান কারণ, পিসিওএস–এর সাথে লড়াই করা যেতে পারে। এটি পিসিওএস আক্রান্ত মহিলাদের ঋতুচক্রের উন্নতি করার মাধ্যমে ডিম্বাশয়ের সঠিক কার্যকারিতা বজায় রাখে। মহিলাদের প্রজনন ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে এমন একাধিক অন্যান্য কারণ যেমন ঋতুস্রাবের অনুপস্থিতি, জরায়ুতে ফাইব্রয়েড, এন্ডোমেট্রিওসিস এবং আরও অনেক কিছু দারুচিনির সাহায্যে চিকিৎসা করা যেতে পারে। তদতিরিক্ত, এটি ঈস্ট সম্পর্কিত সংক্রমণ এড়াতে সহায়তা করে। এটি প্রতিদিন গরম জল দিয়ে খাওয়ার এবং ডায়েটের সাথে এটিকে যুক্ত করার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে 2 চা চামচের বেশি সেবন করা থেকে বিরত থাকুন।

১৭. ফোলিক অ্যাসিড

গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের জন্মগত ত্রুটিগুলি রোধ করার জন্য প্রাথমিকভাবে পরিচিত, এটি প্রথম বার গর্ভবতী হওয়ার ক্ষেত্রেও সহায়তা করতে পারে। ফোলিক অ্যাসিড একটি প্রজনক্ষম অবস্থা বজায় রাখার একটি মূল উপাদান কারণ এটি ডিম্বস্ফোটনের সাথে সম্পর্কিত প্রক্রিয়াগুলির সঠিক কাজ বজায় রাখতে সহায়তা করে। গর্ভধারণের চেষ্টা করার আগে কয়েক মাসের জন্য 400 এমসিজি পরিমাণে ফোলিক অ্যাসিড ট্যাবলেট গ্রহণ করা দরকারl। এটি আপনাকে গর্ভবতী হতে সাহায্য করার পাশাপাশি অটিজমের মতো ত্রুটিগুলি থেকে রক্ষা করে অনাগত শিশুর বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ সহায়তা প্রদান করে।

১৮. স্টিঙ্গিং নেটল বা বিছুটি জাতের গাছ

জরায়ু সম্পর্কিত সমস্যার চিকিৎসা এবং প্রজনন ক্ষমতা উন্নত করার জন্য খুব বেশি প্রস্তাবিত, স্টিঙ্গিং নেটল হ‘ল এমন একটি ওষধি যা সরাসরি অ্যাড্রিনাল গ্রন্থিকে প্রভাবিত করে এবং তাদের কার্যকারিতা বাড়াতে সহায়তা করে। এটি গর্ভবতী হওয়ার এবং জরায়ুর ভিতরে ভ্রূণ ধরে রেখে এবং গর্ভপাতের সম্ভাবনা হ্রাস করে গর্ভবতী থাকার সম্ভাবনা বাড়ায়। ভিটামিন কে, ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি এবং ভিটামিন ই এর একটি দুর্দান্ত উৎস হওয়ায় প্রসবের পরেও নেটল চা বাঞ্ছনীয় কারণ এটি মায়ের দুধ উৎপাদনে সহায়তা করে এবং নবজাতক শিশুকে পুষ্টি সরবরাহ করে। কয়েক মাস ধরে কয়েক কাপ চা পান করলে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বাড়াতে সহায়তা করে।

১৯. ফটকিরি

কিছু মহিলাদের উপযুক্ত মাসিক চক্র থাকে এবং তবুও গর্ভাবস্থা অর্জন করতে তারা ব্যর্থ হয়। এই ক্ষেত্রে, প্রজনন ক্ষমতা পুনরুদ্ধারের জন্য ফটকিরি একটি ভাল প্রতিকার হিসাবে পরিচিত। একটি ছোট টুকরো ফটকিরি নিন এবং এটিকে তুলো দিয়ে মুড়ে দিন। রাতে ঘুমানোর সময়, যোনির ভিতরে এটি রেখে দিন এবং সকালে ঘুম থেকে ওঠার পরে এটি সরিয়ে ফেলুন। একটি সাদা দুধের মতো স্তর তুলোর উপরে উপস্থিত থাকবে। সাদা স্তরটি আর উপস্থিত না হওয়া পর্যন্ত এটি পুনরাবৃত্তি করা দরকার। এটি গর্ভবতী হতে সক্ষম হওয়ার একটি শক্তিশালী লক্ষণ। এটি অনুসরণ করার পর আপনি ফটকিরির টুকরোগুলির ব্যবহার বন্ধ করতে পারেন এবং গর্ভবতী হওয়ার চেষ্টা শুরু করতে পারেন।

২০. ডালিম

দীর্ঘ ও স্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের জন্য প্রাকৃতিক পরিপূরক হিসাবে এই ফলটি দারুণভাবে পরিচিত। এছাড়াও, এটি মহিলাদের গর্ভবতী হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধির পাশাপাশি তাদের প্রজনন ক্ষমতা বাড়াতেও সফল ভাবে প্রকটিত। ডালিম যা করে তা হল জরায়ুতে রক্ত প্রবাহকে বাড়িয়ে তোলে। এর ফলে সরাসরি জরায়ুর আস্তরণ ঘন এবং শক্তিশালী হয়ে ওঠে যার ফলস্বরূপ, গর্ভপাত ঘটার সম্ভাবনা কমায়। শক্তিশালী এবং নিরাপদ জরায়ু থাকায়, ভ্রূণ এখন স্বাস্থ্যকর পদ্ধতিতে বিকশিত হতে পারে। তাজা ডালিম কয়েক সপ্তাহ ধরে সঠিক পরিমাণে কাঁচা বা রস আকারে খাওয়া উচিত।

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


%d bloggers like this: