blog

অতিরিক্ত চর্বিকে বলুন টাটা।

অনলাইনে শপিং করে মনের মত একটা ড্রেস অর্ডার করলেন। কিন্তু সমস্যা হল যখন ওটি পড়লেন। কারন কেনার সময় মডেলের উপর ড্রেসটি যতটা মানাছিল আপনার ক্ষেত্রে ঠিক তার উল্টো!

এরকম সমস্যা আমাদের রোজ হয়। তার কারন আমাদের শরীরের জমা অতিরিক্ত মেদ। আর মেয়েদের জন্য বিশেষ করে কোমরে জমা চর্বি সবচেয়ে বড় দুসমান। তা বন্ধুরা চিন্তা নেই। আজ থেকে ফলো করুন কয়েকটা সামান্য টিপস আর এবারের পুজোর আগে কোমরের চর্বিকে বলুন বাই।

এই জিনিস গুলো এড়িয়ে চলুন যাতে না চর্বি বাড়ে

  1. ফ্যাট জাতীয় খাবার থেকে দূরে থাকুন।
  2. কোল্ড ড্রিঙ্কস বা অ্যালকোহল খাওয়া বন্ধ করুন।
  3. যেকোনো রকমের দুশ্চিন্তা থেকে নিজেকে মুক্ত রাখুন। কারন দুশ্চিন্তা করলে তখন হাবিজাবি খাওয়ার ইচ্ছা বেড়ে যায় যা ভালো না।
  4. চিনি অতিরিক্ত মাত্রায় খাবেন না। চিনি অ্যাভয়েড করলে সবচেয়ে ভালো হয়। তাছাড়া সুগার জাতীয় খাবারকে এড়িয়ে যান।
  5. ফলের রস খাওয়ার অভ্যাস থাকলে তা বন্ধ করুন। তার চেয়ে ভালো গোটা ফল খাওয়া। বা বাজারের প্যাকেট করা ফলের রস না খেয়ে বাড়িতে জুস বানিয়ে খাওয়া।

কোমরের চর্বি কমাতে কি কি করবেন

  • ফাইবার সমৃদ্ধ খাবার যেমন টমেটো, ব্রকলি, গাজর, বীট, বেদানা, নেস্পাতি ইত্যাদি খাবার লিস্টে অবশ্যই রাখুন রোজ।
  • হাই প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার যেমন মাছ, ডিম খান বেশি করে। মাছ খেলে ছোট মাছ বেশি খান। বেশি চর্বি যুক্ত মাছ সপ্তাহে একবারের বেশি খাবেন না।
  • আমরা অনেকেই জানি না যে রান্নার তেলে ভালো পরিমানে ফ্যাট থাকে। তাই বেছে নিন ফ্যাট ফ্রি অয়েল। সেক্ষেত্রে নারকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন রান্নার জন্য।
  • দিনে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভালোভাবে ৮ ঘণ্টা শান্তিপূর্ণ ভাবে অবশ্যই ঘুমান। এতে হজম শক্তি বাড়ে ফলে খাবার ভালো ভাবে হজম হয়। যা চর্বি জমার হাত থেকে অনেকটা হলেও বাঁচায়।
  • অ্যাপেল সিডার ভিনিগার খাওয়ায় অ্যাড করুন চোখ বন্ধ করে।
  • রোজ সকালে আর খাওয়ার পরে পরেই গ্রিন টি খান দেখবেন ৩০% ফ্যাট এতেই কমে যাবে।

এক্সাসাইজ মাস্ট

এক্সাসাইজ না করলে কিন্তু জমে থাকা চর্বি কমানো সম্ভব হবে না। তাই নিয়মিত নিজের জন্য সকালে বা বিকেলে আর সম্ভব হলে দুবেলা ৩০ মিনিট সময় বের করে ব্যায়াম করুন।দুটি সহজ ব্যায়াম বলে দিচ্ছি এগুলো ঠিক ভাবে করলেই কোমরের চর্বি গলতে শুরু করবে এক সপ্তাহের মধ্যে।

পেলভিক ব্রিজ এক্সাসাইজ স্টেপ বাই স্টেপ-

  1. সবার প্রথমে সোজা হয়ে শুয়ে পরুন। আপনার দু কাঁধের মধ্যে ঠিক যতটা দূরত্ব ঠিক ততটা দূরত্ব দুটো পায়ের মধ্যে যেন থাকে।
  2. এই পজিসানে আসার পর আসতে আসতে কোমর মাটি থেকে উপরের তোলার চেষ্টা করুন। হাত মাটিতে কোমরের পাস থেকে রেখে দিন।
  3. কোমর কোন রকম ব্যাথা ছাড়া যতটা উপরে ওঠে ততটাই তুলুন। কয়েকদিন করলে আপনা আপনি কোমর মাটি থেকে বেশি উপরে উঠবে।
  4. কোমর মাটি থেকে উপরে তোলার পর মনে মনে দশ গুনুন। নিঃশ্বাস স্বাভাবিক থাকবে।
  5. দশ গোনা হয়ে গেলে স্টার্টিং পজিসানে ফিরে এসে আবার করুন। মোট দশবার এটি করুন রোজ।

ওয়াল সিট স্টেপ বাই স্টেপ-

  1. খুব সোজা এই এক্সাসাইজটি করা।
  2. শোবার প্রথমে ঘরের সবচেয়ে পরিষ্কার ও প্লেন দেওয়াল বেছে নিন। এবার দেওয়ালের দিকে পিঠ করে দাঁড়ান।
  3. এবার চেয়ারে বসলে ঠিক যেরকম ভাবে পা ভাঁজ হয় ঠিক সে ভাবে পা ভাঁজ করার চেষ্টা করুন। চেয়ার ছাড়া চেয়ারে বসার ভঙ্গিতে যতক্ষণ পারেন বসুন ঠিক এভাবে।
  4. পা ব্যাথা করলে উঠে দাড়িয়ে ৩০ সেকেন্ড পর আবার একি ভাবে পুনরায় বসুন। এরকম ভাবে ১০ থেকে ১৫ বার এটি করুন রোজ।

 

 

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *