blog

শীতের রুক্ষতা কমাতে এই ব্যবস্থা নিন।

সুন্দর, কোমল ত্বক, আমরা কে না চাই বলুন তো? কিন্তু শীতকাল সকলের প্রিয় হলেও শীতকাল কিন্তু ত্বকের জন্য খুব একটা সুখকর নয়। কারণ শীতের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের শুষ্কতা ও নিস্তেজ ভাব বেশি করে ধরা দেয়।
আর সেই কারণে শীতকালে আপনার ত্বকের বিশেষ যত্ন নেওয়া দরকার। মনে রাখতে হবে, এক্সফোলিয়েশন আপানার দৈনন্দিন বিউটি রুটিনের একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ।
সাধারণ এক্সফোলিয়েটারগুলি মরা কোষগুলিকে সুন্দর ভাবে বের করে দিয়ে ত্বককে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করে।

আজকের প্রতিবেদনে আমরা আপনাদের জানাবো ঘরে তৈরি ৩টি বডি পলিশের কথা, যা ব্যবহার করলে আপনার ত্বক শীতের রুক্ষতা থেকে মুক্তি পাবে এবং ত্বক হয়ে উঠবে ঝকঝকে ও জেল্লাদার।

১। আমন্ড-মিল্কের বডি স্ক্রাবঃ-

   ১ কাপ আমন্ড বাদাম খাবার

  ১ কাপ মুলতানি মাটি

  ১/৪ কাপ হোল মিল্ক পাউডার বা লো ফ্যাট মিল্ক

দুধের মধ্যে রয়েছে ল্যাকটিক অ্যাসিড, যা ত্বকের মৃত কোষ দূর করতে কার্যকর। এটি আমন্ডের গুঁড়ো, যা ত্বককে নরম করে। এই মিশ্রণটি দারুণ তেল শোষণ করে, এবং ত্বককে ডিটক্সের করতেও বিশেষভাবে সাহায্য করে । আর এই দুই উপকরণ একসঙ্গে মিশে গিয়ে আপনার ত্বকের রুক্ষতা এবং শুষ্কতার বিরুদ্ধে লড়াই করে।

২। সুইট আমন্ড সফটেনিং পলিশারঃ-

  • ১ কাপ চিনি (নর্মাল চিনি অথবা ব্রাউন সুগার)
  • ১/২ কাপ মিষ্টি বাদাম তেল অথবা নারকেল তেল
  • ভিটামিন ই ক্যাপসুল
  • আপনার পছন্দের এসেন্সিয়ার অয়েল ৪-৫ ফোঁটা (অপশনাল)

এই বডি পলিশার অত্যন্ত হাইড্রেটিং, এটি আপনার ত্বক পরিষ্কার করে, স্ক্রাব করে এবং ত্বকের সমসস্ত ক্ষতি পূরণ পূরণ করে। এটি এতটাই কার্যকর যে, এটি আপনি প্রথমবার ব্যবহার করার পর থেকেই একটা পার্থক্য অনুভব করবেন। সপ্তাহে অন্তত একদিন করে এর ব্যবহারের ফলে খুব ভাল ফল দেবে।

অন্যদিকে চিনি হল একটি অত্যন্ত শক্তিশালী এক্সফোলিয়েন্ট। এসেন্সিয়াল অয়েল আপনার ত্বকে কোমলতা এবং উজ্জ্বল আভা প্রদান করে। এছাড়াও এটি আপনার মন-মেজাজকে উন্নত করে এবং ভিটামিন ই ত্বকের শুষ্কতার সঙ্গে লড়াই করে।

৩। অয়েস-সি সল্ট পলিশারঃ-

  • সি সল্ট বা টেবিল সল্ট
  • নারকেল তেল বা বাদাম তেল বা এপ্রিকোট অয়েল
  • লেবুর রস

ঘরোয়া এই বডি পলিশার ব্যবহারে আপনি পেতে পারেন অসাধারণ পুষ্টি। সি সল্ট ত্বককে পরিষ্কার করে এবং কোষের পুনর্নবীকরণে সহায়তা করে এবং তেল আপনার ত্বকের রেডিয়েন্স বাড়াতে সাহায্য করে। পাশাপাশি লেবুর রস আপনার ত্বকের ট্যান দূর করে এবং ত্বককে আরও উজ্জ্বল করে তোলে।

৪। মধুর কামালঃ- মধুর সবচেয়ে বড় সুবিধা হলে এটি বিভিন্ন ধরণের ত্বকের ওপর কাজ করে এবং আপনার ত্বককে নরম ও সতেজ রাখতে সাহায্য় করে। এর জন্য মধু নিয়ে সরাসরি আপনার ত্বকে অ্যাপ্লাই করুন, তবে আপনারা যদি চান, তাহলে এর মধ্যে খানিকটা কাঁচা দুধ মিশিয়ে ফেটিয়ে নিয়েও অ্যাপ্লাই করতে পারেন। মধু ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে এবং আপনার ত্বককে ব্যাকটেরিয়া থেকে দূরে রাখে। চেষ্টা করুন অর্গানিক মধু ব্যবহার করুন।
৫। দইের ম্যাজিকঃ- দই একটি প্রাকৃতিক এক্সফোলিয়েটার এবং শীতে চকচকে ত্বকের জন্য সেরা একটি ঘরোয়া প্রতিকার। এতে থাকা ল্যাকটিক অ্যাসিড, ত্বকের মৃত কোষগুলিকে দূর করে এবং ত্বকে আর্দ্রতা যোগায়। শীতে শুষ্ক ও নিষ্প্রাণ ত্বকের হাত থেকে মুক্তি পেতে দইয়ে কয়েক ফোঁটা মধু এবং লেবুর রস মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করে লাগান এবং ১৫ থেকে ২০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।

 

 

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *