blog

হঠাত বৃষ্টির জলে ভিজে বাড়ি ফিরলে!

বর্ষা এখনও পর্যন্ত তার ফুল ফর্মে ইনিংস শুরু না করলেও আর কিছুদিনের মধ্যেই ছক্কা হাঁকাতে চলেছে। এই মরসুমে পরিবেশ ঠান্ডা থাকলেও বিভিন্ন রকম রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা যায়। ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া, পেট খারাপের মতো প্রকোপ দেখা দেয়। তাই এই সময় সতর্ক থাকাটাই সমীচিন। ভাইরাস জনিত রোগের প্রকোপও এই ঋতুতে বেড়ে যায়। তাই এই সময় কিছু বাড়তি সতর্কতা নেওয়া জরুরি। আগাম বেশ কিছু সতর্কতা অবলম্বন করলে গোটা বর্ষাই সুস্থ থাকা যায়।

ভিজলে স্নান করুন

বাড়ি থেকে বেরোরার সময় হয়ত দেখলেন কড়া রোদ তার উষ্ণতা দিয়ে আপনার মনকে অনেক বেশি এনার্জেটিক করে দিয়েছে। আজ আর বৃষ্টি হবে না, এই ভেবে আপনি কনফিডেন্টলি ছাতা বা বর্ষাতি না নিয়েই বেরোলেন। মাঝ রাস্তায় গিয়ে টের পেলেন আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনা।   সূর্য্যিমামাকে পাটে পাঠিয়ে কালো কালো দৈত্যাকৃতি মেঘ আকাশ ছেয়ে ফেলেছে। অবশেষে বাড়ি ফিরলেন কাকভেজা হয়ে। পোশাক বদলে চুপচাপ বসে গেলেন নিজের কাজে। গায়েই সে জল শুকিয়ে গিয়ে দেখলেন, পরদিন সারা শরীর ব্যথা, মাথা ধরা, হাঁচি, জ্বর প্রভৃতি  উপসর্গ। মনে রাখবেন, বৃষ্টির জলে ভিজলে অবশ্যই বাড়ি ফিরে ভালো করে স্নান করুন। লক্ষ্য রাখবেন গায়ে বৃষ্টির জল যেন কোনওভাবেই না বসে। গায়ে বৃষ্টির জল শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যায়। স্নান করার সময় বালতির জলে সামান্য লিক্যুইড অ্যান্টিসেপটিক মিশিয়ে নিতে পারেন।

গরম পানীয় খান

বৃষ্টিতে ভিজে বাড়ি ফিরলে শরীরের তাপমাত্রা হঠাত করে নেমে যায়. ফলে ঠান্ডা লাগার প্রবণতা অনেক গুণ বেড়ে যায়। এর থেকে সর্দি, কাশি, জ্বর হতে পারে। তাই শরীরের তাপমাত্রার ভারসাম্য আনতে উষ্ণ জল খান। গরম দুধ বা স্যুপও খেতে পারেন। চট করে অসুস্থ হয়ে পড়বেন না।

বর্ষার সরঞ্জাম সঙ্গে রাখুন

বর্ষাকালে প্রকৃতিমাতা বেশ খামখেয়ালি। গোটা মরসুম ধরেই রোদ-মেঘ-বৃষ্টির খেলা চলে। তাই বাড়তি সতর্কতা হিসাবে বাড়ি থেকে বোরোবার সময় ছাতা বা বর্ষাতি সঙ্গে রাখুন। সামান্য বৃষ্টি পড়লেও ভিজবেন না। ছাতা বা বর্ষাতি ব্যবহার করুন।

খোলা দোকানের খাবার এড়িয়ে চলুন

এই মরসুমে আবহাওয়া আর্দ্র থাকে বলে বাতাসে বিভিন্ন রোগের জীবাণু ভেসে বেড়ায়। রাস্তার খোলা দোকানের খাবার অস্বাস্থ্যকর অবস্থায় বিক্রি হয়। দোকানের অস্বাস্থ্যকর জলের থেকেও ভাইরাস দেহে সংক্রামিত হতে পারে। ফলে সংক্রমণ জনিত রোগের প্রকোপ বৃদ্ধি পায়। তাই এই মরসুমে রাস্তার খাবার এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের কাজ।

পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা

এই সময় জমা জল থেকে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গুর মতো রোগ ছড়ায়. বাড়ির ভেতর ও আশেপাশে ফেলে দেওয়া নারকেলের খোলা, চৌবাচ্চা, পরিত্যক্ত বালতি, পাইপ, নর্দমার জমা জলে মশার লার্ভা বেড়ে ওঠে। তাই নিজের বাড়ি ও তার আশেপাশের অংশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখুন। লক্ষ্য রাখবেন বাড়ি বা আশেপাশে কোথাও যেন জল জমা না হতে পারে। ঘরের ভেতরে বাথরুম, রান্নাঘর বা বেসিন সবসময় পরিষ্কার রাখুন।

 

 

 

 

Share this post

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *